চাষাবাদ পদ্ধতিমাঠ ফসল চাষসবজি ফসল চাষ

হাইব্রিড চিচিঙ্গা চাষ পদ্ধতি

হাইব্রিড চিচিঙ্গা চাষ পদ্ধতি বাংলাদেশের সকলের নিকট প্রিয় অন্যতম প্রধান গ্রীষ্মকালীন সবজি। এর অনেক ঔষধী গুণ আছে। চিচিঙ্গার ১০০ ভাগ ভক্ষণযোগ্য অংশে ৯৫ ভাগ পানি, ৩.২-৩.৭ গ্রাম শর্করা, ০.৪-০.৭ গ্রাম আমিষ, ৩৫-৪০ মিঃগ্রাঃ ক্যালসিয়াম, ০.৫-০.৭ মিঃগ্রাঃ লৌহ এবং ৫-৮ মিঃগ্রাঃ খাদ্যপ্রাণ সি আছে। জলবায়ু ও মাটি উষ্ণ ও আর্দ্র আবহাওয়ায় চিচিঙ্গা ভাল জন্মে। শীতের দু’ তিন মাস বাদ দিলে বাংলাদেশে বছরের যেকোন সময় চিচিঙ্গা জন্মানো যায়। সব রকম মাটিতে চিচিঙ্গার চাষ করা যায় তবে জৈব সার সমৃদ্ধ দো-আশঁ ও বেলে দো-আশঁ মাটিতে ভালো জন্মে। চিচিঙ্গা এর উল্লেখযোগ্য জাত আমাদের দেশে বিভিন্ন ধরণের চিচিঙ্গা দেখা যায়। এগুলো হল ঝুম লং, সাদা সাভারী, কইডা বা বন চিচিঙ্গা। এছাড়াও বেশকিছু হাইব্রিড জাতের চিচিঙ্গাও পাওয়া যাচ্ছে আমাদের দেশে। তারমধ্যে রয়েছে তিস্তা, তুরাগ, সুরমা, রূপসা, ঢাকা গ্রিন, মধুমতি, বর্ণালী, চিত্রা, ...

বিস্তারিত পড়ুন
চাষাবাদ পদ্ধতিমাঠ ফসল চাষসবজি ফসল চাষসাম্প্রতিক পোষ্ট

করলার চাষ পদ্ধতি

করলার চাষ পদ্ধতি উচ্ছে ও করলা তিতা বলে অনেকেই খেতে পছন্দ করেন না। তবে এর ঔষধিগুণ অনেক বেশি। ডায়াবেটিস, চর্মরোগ ও কৃমি সারাতে এগুলো ওস্তাদসবজি। ভিটামিন ও আয়রন-সমৃদ্ধ এই সবজির অন্যান্য পুষ্টিমূল্যও কম নয়। উচ্ছে ও করলা এ দেশের প্রায় সব জেলাতেই চাষ হয়। আগে শুধু গরমকালে উচ্ছে-করলা উৎপাদিত হলেও এখন জাতের গুণে প্রায় সারা বছরই চাষ করা যায়। যেগুলো অপেক্ষাকৃত ছোট, গোলাকার, বেশি তিতা, সেগুলোকে বলা হয় উচ্ছে। বড়, লম্বা ও কিছুটা কম তিতা স্বাদের ফলকে বলা হয় করলা। উচ্ছেগাছ ছোট ও কম লতানো হয়। করলাগাছ বেশি লতানো ও লম্বা লতাবিশিষ্ট, পাতাও বড়। উচ্ছে ও করলা তিতা বলে অনেকেই খেতে পছন্দ করেন না। তবে এর ঔষধিমূল্য অনেক বেশি। ডায়াবেটিস, চর্মরোগ ও কৃমি সারাতে এগুলো এক ওস্তাদসবজি। ভিটামিন ও আয়রন-সমৃদ্ধ এই সবজির অন্যান্য পুষ্টিমূল্যও কম নয়। মাটি : প্রায় সব রকমের মাটিতে ও পানি জমে না এমন জা...

বিস্তারিত পড়ুন
চাষাবাদ পদ্ধতিমাঠ ফসল চাষসবজি ফসল চাষ

আগাম টমেটো চাষ পদ্ধতি

আগাম টমেটো চাষ পদ্ধতি আগাম টমেটো চাষ করার জন্য প্রধান প্রধান জাত হচ্ছে বিনাটমেটো ৩, বিনাটমেটো ৪, বারিটমেটো ৪, বারিটমেটো ৫ এবং বারিটমেটো ৬ (চৈতী)। পলিথিনের ছাউনিতে এসব জাত চাষ করা হয়। একটি ছাউনি ২০ মিটার ´২.৩ মিটার আকৃতির হলে ভালো। ৩০ সেন্টিমিটার চওড়া ২টি বীজতলায় লম্বালম্বিভাবে ১টি করে ছাউনির ব্যবস্থা করে নিতে হবে। ছাউনির খুঁটির উভয় পাশের উচ্চতা ১৫০ সেন্টিমিটার এবং মাঝখানের খুঁটির উচ্চতা ২১০ সেন্টিমিটার হতে হবে। জমি নৌকার ছইয়ের আকৃতি করে পলিথিন দিয়ে ছাউনি দিতে হয়। ২টি ছাউনির মাঝে ৭৫ সেন্টিমিটার চওড়া নিকাশ নালা রাখলে ভালো হয়। প্রতিটি ছাউনিতে ২টি বীজতলা রাখতে হবে। বীজতলা : জমি থেকে বীজতলার উচ্চতা ২০ থেকে ২৫ সেন্টিমিটার রাখা দরকার। ২টি বীজতলার মাঝে ৩০ সেন্টিমিটার চওড়া নালা রাখতে হয়। প্রতিটি ছাউনিতে ৪টি সারি রাখতে হবে। চারা রোপণ : ২৫-৩০ দিন বয়সের চারা প্রতি বেডে ২...

বিস্তারিত পড়ুন
উন্নত প্রযুক্তিকৃষি তথ্যকৃষি প্রযুক্তিকৃষির তথ্যচাষাবাদ পদ্ধতিমাঠ ফসল চাষসবজি ফসল চাষ

যশোরে শত ভাগ ভাইরাসমুক্ত চেরি টমেটো

যশোরে শত ভাগ ভাইরাসমুক্ত চেরি টমেটো শতভাগ ভাইরাসমুক্ত উচ্চ ফলনশীল বিটা ক্যারোটিন সমৃদ্ধ ক্যানসার প্রতিরোধক চেরি টমেটো চাষ হচ্ছে যশোরে। পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ টমেটোর এ জাতটি কৃষকের মধ্যে ছড়িয়ে দেয়ার উদ্যোগ নিয়েছে আঞ্চলিক কৃষি গবেষণা কেন্দ্র, যশোর। গাছগুলোর লাল হলুদ রং এর গুচ্ছবদ্ধ টমেটো বাগানের সৌন্দর্য পাল্টে দিয়েছে। থাইল্যান্ডের অতি জনপ্রিয় এই টমেটো বিশ্বে গার্ডেন্স ডিলাইট বা চেরি টমেটো নামে বেশি পরিচিত। যশোরের কৃষক সবজি হিসেবে চাষ করছেন চেরি টমেটো। বাজারে অন্য জাতের টমেটোর চেয়ে এ জাতের টমেটোর দাম তুলনামূলক বেশি। উচ্চফলনশীল ও দীর্ঘসময় ধরে ফলন পাওয়ায় চেরি টমেটো চাষে আগ্রহ রয়েছে কৃষকের। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইন্সটিটিউট এ জাতটি কৃষকদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে কাজ করছে। বিজ্ঞানীরা জানান, উন্নত জাতের চেরি টমেটো বিটা ক্যারেটিন সমৃদ্ধ হওয়ায় এটি ক্যান্সার রোগ প্রতিরোধক।

বিস্তারিত পড়ুন
উন্নত প্রযুক্তিকৃষির প্রযুক্তিচাষাবাদ পদ্ধতিফল চাষমাঠ ফসল চাষ

১২ মাসী জাত শসা চাষ করুন -লাভজনক কৃষি উদ্যোক্তা হোন

১২ মাসী জাত শসা চাষ করুন -লাভজনক কৃষি উদ্যোক্তা হোন মাটি:দো-আঁশ ও এঁটেল দো-আঁশ মাটিতে ভালো হয়৷ বীজ-বোনার সময়: ১২ মাসী বিধায় এই বীজ বছরের যে কোন সময় বপন করা হয় তবে অতীব শীতে এই বীজ বপন না করাই উত্তম। বীজের হার:এক শতকে-২-৩ গ্রাম, একর-প্রতি-২০০-৩২৫ গ্রাম, হেক্টর-প্রতি-৫০০-৮০০গ্রাম জমি তৈরি:বার চারেক চাষ ও মই দিয়ে জমির মাটি ঝুরঝুরে করে নেওয়া হয়৷ আগাছা সম্পূর্ণ পরিষ্কার কেও ক্ষেত সমতল করে নিতে হবে৷ মাদা-তৈরি:৫০-৮০ সে. মি. চওড়া ও গভীর-গর্ত তৈরি করতে হয়৷ মাদার দূরত্ব:২-২.৫ মি: দূরে মাদা তৈরি করতে হয়৷ বহুয়ে শসার দূরত্ব আরও কম।   বীজ বপন : প্রতি মাদায় ৪-৫টি বীজ লাগাতে হয়৷ বীজ একদিন ও একরাত ভিজিয়ে-লাগানো ভালো৷ সার-ব্যবস্থাপনাঃ সার-ব্যবস্থাপনাঃ সার একশতকে একর-প্রতি হেক্টর-প্রতিঃ ১। গোবর ২০কেজি ২.০ টন ৫টন ২। খৈল ১কেজি ১৩০ গ্রাম ১১৩ কেজি ২৮০ কেজি ৩। টিএসপি ৬০০ গ

বিস্তারিত পড়ুন