কৃষি তথ্যকৃষি স্বাস্থ্যসাম্প্রতিক পোষ্ট

হাস-মুরগিরও কী করোনা আক্রান্ত হয়?

হাঁস-মুরগিও করোনা আক্রান্ত হয়, তবে মানুষে ছড়ায় না শুধু মানুষেই নয় হাঁস-মুরগি, পাখি, মাছ ইত্যাদিও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়। তবে পশুপাখি ও মাছ যে করোনাভাইরাস দিয়ে সংক্রমিত হয় তার ধরণ আলাদা। সেগুলো জুনোটিক নয় অর্থাৎ আক্রান্ত পশুপাখি ও মাছের করোনাভাইরাস দিয়ে মানুষ সংক্রমিত হয় না। হাঁস-মুরগির (পোল্ট্রি) করোনাভাইরাস নিয়ে ভয়ের কিছু নেই, কারণ এই ভাইরাসের ভ্যাকসিন বাজারে সহজলভ্য। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি ও হাইজিন বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আলিমুল ইসলাম এ তথ্য জানিয়েছেন। তিনি বলেন, ইনফেকশাস ব্রঙ্কাইটিস ভাইরাসকে (আইবিভি) পোল্ট্রির করোনাভাইরাস বলা হয়।          শুধু মানুষেই নয় হাঁস-মুরগি, পাখি, মাছ ইত্যাদিও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়। তবে পশুপাখি ও মাছ যে করোনাভাইরাস দিয়ে সংক্রমিত হয় তার ধরণ আলাদা। সেগুলো জুনোটিক নয় অর্থাৎ আক্রান্ত পশুপাখ...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষি তথ্যকৃষি স্বাস্থ্যকৃষির তথ্যসাম্প্রতিক পোষ্ট

অতিরিক্ত সার ব্যবহারের অপকারিতা ও সঠিক সার প্রয়োগ পদ্ধতি

অতিরিক্ত সার ব্যবহারের অপকারিতা ও সঠিক সার প্রয়োগ পদ্ধতি যেকোনো ফসল চাষে নাইট্রোজেন, ফসফরাস ও পটাশজাতীয় সারই বেশি ব্যবহার করা হয়। ইদানীং অনেকে জমির মাটি পরীক্ষা ছাড়া চুনও ব্যবহার করছেন। এ ছাড়া বাড়িতে তৈরী ছত্রাকনাশক হিসেবে কপারজাতীয় ছত্রাকনাশ বোর্দো মিশ্রণও ব্যবহার করছেন। জিঙ্ক সার হিসেবে সস্তায় পাওয়া যায় বলে দস্তা সারের অহেতুক ব্যবহারও কম নয়। পরিমাণের চেয়ে বেশি হলে বা ব্যবহারের প্রয়োজন না হলে যেকোনো রাসায়নিক সার মাটির ক্ষতি করতে পারে। তাই মাটি পরীক্ষার মাধ্যমে বিভিন্ন প্রয়োজনীয় খাদ্য উপাদানের অবস্খা বুঝে সার ব্যবহার করা উচিত। আবার এক ফসলে সার ব্যবহারের পরের ফসলে সার কম লাগে বা না দিলেও চলে সেদিকেও লক্ষ্য রাখা দরকার। জমিতে একবার চুন ব্যবহারের পর পরের এক বছর চুন ব্যবহার করতে হয় না। গাছের সমস্যার কারণে কপারজাতীয় ছত্রাকনাশক ব্যবহারের আগে মাটিতে তার অবস্খা জেনে ব্যবহার কর...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষি তথ্যকৃষি স্বাস্থ্যকৃষির তথ্যসাম্প্রতিক পোষ্ট

প্লাষ্টিকের বোতলে পানি খাওয়া কতটা নিরাপদ ?

প্লাষ্টিকের বোতলে পানি খাওয়া কতটা নিরাপদ ? আমাদের প্রাত্যাহিক জীবনে প্লাষ্টিক অনেকখানি জায়গা জুড়ে আছে। সকালে ঘুম থেকে উঠে দাত পরিস্কার করার প্লাষ্টিকের ব্রাশটি দিয়ে আমাদের দিন শুরু হয়। কফির কাপ, পানির বোতল, খাবারের বাটি সব কিছুতেই যেন প্লাষ্টিকের সামগ্রীর রাজত্ব । কিন্তু আমরা কি কখনো ভেবে দেখেছি, যে পানির বোতলে করে প্রতিদিন নিরাপদ মনে করে পানি পান করছি সেই প্লাষ্টিকের পানির বোতলটি আপনার দেহের জন্য কতটা নিরাপদ ? আসুন আজ জেনে নেই প্লাষ্টিকের পানির বোতল তৈরির উপাদান ও ক্ষতির সম্ভাবনা । মূলত দুই ধরনের যৌগ দিয়ে এসব ড্রিংকিং ওয়াটার বা মিনারেল ওয়াটারের বোতল তৈরি করা হয়। এর একটি পলিকার্বন বিসফেনল এ (Bisphenol A) বা বিপিএ এবং অপরটি পলিইথিলিন টেরেফথালেট (Polyethylene Terephthalate) বা পিইটি নামে পরিচিত। বিজ্ঞানীরা পলিইথিলিনকে নিরাপদ বিবেচনা করলেও বিসফেনল এ (বিপিএ) কে ক্ষতিকারক হিসেবে বিব...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষি স্বাস্থ্যসাম্প্রতিক পোষ্ট

মারাত্মক ছয় রোগ থেকে মুক্তি দেয় মিষ্টি কুমড়ার বীজ

মারাত্মক ছয় রোগ থেকে মুক্তি দেয় মিষ্টি কুমড়ার বীজ মিষ্টি কুমড়া খুবই পুষ্টিকর একটি সবজি। খেতেও দারুণ সুস্বাদু। তবে মিষ্টি কুমড়া খেলেও এর বীজ নিশ্চয় ফেলে দেন? এখানেই হচ্ছে মারাত্মক ভুল। জানলে অবাক হবেন, মিষ্টি কুমড়ার মতো এর বীজেরও রয়েছে অনেক ওষুধি গুণ। মিষ্টি কুমড়া অনেক রোগের ওষুধ। আমাদের দেহের মারাত্মক ছয় রোগ থেকে রক্ষা করে কুমড়ার বীজ। বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় মিষ্টি কুমড়ার বীজ ওষুধ হিসেবে ব্যবহৃত হয়। তাই মিষ্টি কুমড়ার বীজ ফেলে দেয়ার মতো ভুলটি আর নয়। চলুন জেনে নেয়া যাক মিষ্টি কুমড়ার বীজের উপকারিতা সম্পর্কে- বাতের ব্যথা একটু বয়স বাড়লেই বাতের ব্যথায় ভুগতে দেখা যায় অনেককেই। জানেন কি, এই ব্যথা থেকে মুক্তি দেয় মিষ্টি কুমড়ার বীজ। ভেঙে যাওয়া চর্বিসমূহ হাড়ের সন্ধিস্থলে জমা হয়ে ব্যথার সৃষ্টি হয়। আর মিষ্টি কুমড়া চর্বিসমূহ হাড়ের সন্ধিস্থলে জমা হতে দেয় না।এভাবে মিষ্টি কুমড়ার বীজ বাতের ব...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষি স্বাস্থ্যকৃষির তথ্য

হাড়জোড়া এর উপকারিতা ও ঔষধি গুনাগুন

পরিচিতি হাড়জোড়ার লতাটি হাড়ভাঙা নামেও পরিচিত, তবে নামটি হাড়জোড়া হওয়াই যুক্তিসঙ্গত। এটি চারকোনাবিশিষ্ট সবুজ রসালো লতা। ৬-১১ সে.মি. লম্বা পর্ব পরপর জুড়ে শিকলের আকৃতি ধারণ করে। প্রতিটি পর্বসন্ধি বা node -এর এক পাশ হতে একটি পাতা এবং অন্য পাশ হতে একটি আকর্ষি বা tendril গজায়। পাতা হৃৎপিণ্ডের মতো, বোঁটাসহ লম্বা ৬-৭ সে.মি. ও চওড়া ৫-৬ সে.মি. এবং ৩-৫ অংশে বিভক্ত। লতার শীর্ষ থেকে এক একটি পর্ব জুড়ে শিকলের ন্যায় হাড়জোড়া বেয়ে চলে । লতা যত বাড়তে থাকে তত গোড়ার থেকে পাতা বা আকর্ষি যবে পড়ে। ছোট ছোট গুচ্ছাকারে লোমযুক্ত সাদা সাদা ফুল ধরে। পাকা ফল দেখতে লাল ও রসালো আকারে মটরদানার মতো। বৈজ্ঞানিক নামঃ Cissus quadrangularis Linn. পরিবারঃ Vitaceae ইংরেজি নামঃ Large Granadilla বিস্তার বাংলাদেশে সাধারণত সুন্দরবনে এটি প্রাকৃতিকভাবে জজন্মে। তবে অন্যান্য এলাকায় রোপণ করলে জন্মে। লতানো এই গাছটি পাঁচিল বা ...

বিস্তারিত পড়ুন