উন্নত প্রযুক্তিকৃষি উদ্যোক্তাকৃষি প্রযুক্তি

প্লাস্টিক বর্জ্য রিসাইক্লিং উদ্যোক্তাদের জন্য দারুণ সুযোগ

প্লাস্টিক বর্জ্য রিসাইক্লিং উদ্যোক্তাদের জন্য দারুণ সুযোগ সভ্যতা বিকাশের সাথে বিজ্ঞানের অগ্রযাত্রার এক বিস্ময়কর অবদান হলো প্লাস্টিক। এটি আমাদের দৈনন্দিন ব্যবহারের একটি গুরুত্বর্পূণ পণ্য। প্লাস্টিক পণ্য আমাদের নিত্য দিনের সঙ্গী। আমরা ঘর সাজাতে প্লাস্টিকের বিভিন্ন ধরনের পণ্য কিনে থাকি। দামে সাশ্রয়ী, সহজে ব্যবহারযোগ্য, কম ঝুঁকিপূর্ণ ও টেকসই ইত্যাদি কারণে সারা বিশ্বে প্লাস্টিক পণ্যের ব্যবহার দিন দিন বেড়েই চলেছে। অনেক হালকা এবং দামে সস্তার কারণে প্লাস্টিক খুব জনপ্রিয়। দোকানে দোকানে পাতলা প্লাস্টিকের ক্যারিব্যাগের ছড়াছড়ি। বর্তমানে এমন যুগে বাস করছি, যাকে প্লাস্টিক যুগও বলা যায়। ঘরে-বাইরে আসবাবপত্র কিংবা খেলনা-যন্ত্রপাতিতে বা গাড়ি-উড়োজাহাজের বিভিন্ন অংশ, ল্যাবরেটরির বিভিন্ন কাজে দেখা যায় প্লাস্টিকজাত সামগ্রীর বহুল ব্যবহার। প্লাস্টিকের এই ব্যবহারের কারণ হলো, এটিকে যেকোনো আকৃতি দেওয়া যায়, রা...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষি উদ্যোক্তাকৃষি সংবাদ

সফল কৃষক উৎপাদনকারীদের দেয়া হবে পুরস্কার – কৃষিমন্ত্রী

সফল কৃষক উৎপাদনকারীদের দেয়া হবে পুরস্কার - কৃষিমন্ত্রী সফল কৃষক ও ভাল উৎপাদনকারীদের জন্য সিআইপির মতো এআইপি (এগ্রিকালচারাল ইম্পর্ট্যান্ট পারসন) পুরস্কার আসছে বলে জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী মো. আব্দুর রাজ্জাক। বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে বাংলাদেশে নিযুক্ত কসোভোর রাষ্ট্রদূত গুনার ইউরিয়ার সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাতের পর সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান কৃষিমন্ত্রী। মন্ত্রী বলেন, ‘সফল কৃষক ও ভাল উৎপাদনকারীকে সিআইপির মতো এআইপি পুরস্কার দেয়ার প্রস্তাব মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ অনুমোদন দিয়েছে। এআইপি অ্যাওয়ার্ডপ্রাপ্তরা সিআইপির মতো সুযোগ-সুবিধা পাবেন। অ্যাওয়ার্ডের জন্য খুব শিগগিরই সফল কৃষক ও ভাল উৎপাদনকারীদের কাছ থেকে দরখাস্ত আহ্বান করা হবে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘করোনাভাইরাসের কারণে কিছু দেশ থেকে খাদ্য পণ্য আমদানি বন্ধ থাকলেও বাংলাদেশে খাদ্যে কোনো ঘাটতি হবে না। বাংলাদেশে সবচেয়ে বেশি আমদানি করে ভোজ্যতেল। যার স...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষি উদ্যোক্তাকৃষির তথ্যপ্রানিসম্পদশামুকসাম্প্রতিক পোষ্ট

বাণিজ্যিকভাবে শামুক চাষ পদ্ধতি

বাণিজ্যিকভাবে শামুক চাষ পদ্ধতি আপনার যদি পরিতক্ত্য পুকুর বা ডোবা থাকে, তবে আর দেরি না করে ঐ জলাশয়ে শামুক চাষে নেমে পড়ুন। যে জলাশয়েকে বাদের খাতায় ফেলে দিয়েছিলেন সেই জলাশয়ে থেকে আসতে পারে বড় অঙ্কের টাকা। কিন্তু কিভাবে ? শামুক চাষ অত্যন্ত সহজ পদ্ধতি। শামুকের প্রজনন ক্ষমতা বেশি হওয়ায় তা বাণিজ্যিক ভাবে চাষ করা যায়। প্রতি ডেসিম্যাল পুকুরে এক কেজি গোবর, এক কেজি খোল (সরষে) ও ২৫০ গ্রাম ইউরিয়া জলে ভালোভাবে মেশাতে হবে। এ মিশ্রণ সমান চার ভাগে ভাগ করে তিন দিন অন্তর জলে ছিটিয়ে দিতে হবে। পুকুরের জলের রং যখন গাঢ় সবুজ হবে, তখন বুঝতে হবে পুকুরটি শামুক চাষের উপযোগী হয়েছে। এরপর খালবিল বা পুকুর থেকে শামুক সংগ্রহ করে প্রতি ডেসিম্যাল হিসেবে ২৫০ গ্রাম শামুক পুকুরের চারদিকে ছিটিয়ে দিতে হবে। পরবর্তী ১০ থেকে ১৫ দিনের মধ্যে শামুক ব্যাপকভাবে বংশবিস্তার করবে। এরপর ৩৫ থেকে ৪০ দিনের মধ্যে পূর্ণাঙ্গ শামু...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষি উদ্যোক্তাকৃষি তথ্যকৃষি সংবাদসাম্প্রতিক পোষ্ট

দার্জিলিংয়ের কমলা চাষে সফল কৃষি উদ্যোক্তা রফিকুল

দার্জিলিংয়ের কমলা চাষে সফল কৃষি উদ্যোক্তা রফিকুল বাগানে ঢুকতেই অনেক মানুষের ভিড় দেখা গেল। কেউ ঘুরছেন, কেউ আবার সেলফি তুলছেন। আবার কেউ বলছেন, এ যেন দার্জিলিংয়ে কমলা ফলের বাগানে ঘুরতে এসেছেন। গাছে হলুদ কমলা ঝুলে আছে দেখতেই খুব সুন্দর লাগছে। কমলা সাধারণত আমাদের দেশে চাষ খুবই কম। জনশ্রুতি আছে, বাংলাদেশে চাষ করলে কমলা ফল খেতে টক লাগে। কিন্তু স্বাদেও পিছিয়ে নেই এ কমলা। বলছিলাম ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার সীমান্তবর্তী গ্রাম চাপাতলা এলাকার কমলাচাষী রফিকুল ইসলামের কমলা ফলের বাগানের কথা। রফিকুল মহেশপুর উপজেলার চাপাতলা গ্রামের আইনুদ্দীন মণ্ডলের ছেলে। ভারতের সীমান্ত থেকে মাত্র ৪০০ গজ দূরে চাপাতলা গ্রামে অবস্থিত বাগানটি। রফিকুল ইসলাম পেশায় একজন নার্সারি ব্যবসায়ী। তিনি মেন্ডারিন ও দার্জিলিং দুই জাতের কমলা চাষ করেছেন। বাগানে ঘুরতে ঘুরতে কথা হয় রফিকুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি জানান, নিজের এক বিঘ...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষি উদ্যোক্তাকৃষি তথ্যকৃষি প্রযুক্তিকৃষির প্রযুক্তি

ঝিনুক থেকে উৎপাদিত হচ্ছে মুক্তা

ঝিনুক থেকে উৎপাদিত হচ্ছে মুক্তা ঝিনুক শিল্প আমাদের দেশে একটি সম্ভাবনাময় শিল্পের নাম। মাছ চাষের পাশাপাশি ঝিনুক চাষ করে আমরা পেতে পারি মহামূল্যবান বস্তু ‘মুক্তা’। এতে জলাশয়ের সর্বোচ্চ ব্যবহার সম্ভব। সৌখিনতা ও আভিজাত্যের প্রতীক হলেও মুক্তা কিছুু জটিল রোগের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়। মুক্তা কী: মুক্তা অতি প্রাচীন পৃথিবীখ্যাত মূল্যবান রত্ন। যা জীবন্ত প্রাণি ঝিনুক থেকে পাওয়া যায়। মুক্তা জীবন্ত ঝিনুকের দেহের ভেতরে জৈবিক প্রক্রিয়ায় তৈরি এক ধরনের বস্তু। কোন বাহিরের বস্তু ঝিনুকের দেহের ভেতরে ঢুকে নরম অংশে আটকে গেলে আঘাতের সৃষ্টি হয়। ঝিনুক এই আঘাতের অনুভূতি থেকে উপশম পেতে বাহির থেকে প্রবেশকৃত বস্তুটির চারদিকে একধরনের লালা নিঃসরণ করতে থাকে। ক্রমাগত নিঃসৃত এই লালা বস্তুটির চারদিকে ক্রমান্বয়ে জমাট বেঁধে মুক্তায় পরিণত হয়। সফলতা: চূর্ণ মুক্তা আয়ুবের্দিক ঔষধ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। এছাড়া মুক্তা উৎপাদনকারী ঝিনুকের

বিস্তারিত পড়ুন