কৃষির প্রযুক্তিমৎস্যসম্পদমাছ চাষসাম্প্রতিক পোষ্ট

বায়োফ্লক পদ্ধতিতে মাছ চাষ পদ্ধতি বিস্তারিত

বায়োফ্লক প্রযুক্তি মাছ চাষের একটি টেকসই এবং পরিবেশগত ভাবে বন্ধুত্বপূর্ণ মাছ চাষ পদ্ধতি। বায়োফ্লক হল প্রোটিন সমৃদ্ধ জৈব পদার্থ এবং অণুজীব, যেমন- ডায়াটম, ব্যাকটেরিয়া, প্রোটোজোয়া, অ্যালজি, ফেকাল পিলেট, জীবদেহের ধ্বংসাবশেষ এবং অন্যান্য অমেরুদণ্ডী প্রাণী ইত্যাদির ম্যাক্রো-এগ্রিগেট। এটি এমন একটি একোয়াকালচার সিস্টেম যা কার্যকর ভাবে পুষ্টি উপাদানের সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করে খুব কম পানি পরিবর্তন বা একবারও পানি পরিবর্তন না করে। এই প্রযুক্তি পানিতে বিদ্যমান কার্বন ও নাইট্রোজেন এর সাম্যাবস্থা নিশ্চিত করে পানির গুণাগুণ বৃদ্ধি ও ক্ষতিকর রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণু নিয়ন্ত্রণ করে। বায়োফ্লক প্রযুক্তির মূলনীতি হল ইহা হেটারোট্রপিক ব্যাকটেরিয়ার বংশবৃদ্ধিকে ত্বরান্বিত করে, পানিতে উচ্চ কার্বন-নাইট্রোজেন অনুপাত নিশ্চিত করার মাধ্যমে যা ক্ষতিকর অ্যামোনিয়াকে অণুজীব আমিষে রূপান্তর করে। এটি একটি পরিবেশ বান্ধব বিক...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষির প্রযুক্তিচাষাবাদ পদ্ধতিসাম্প্রতিক পোষ্ট

আগাম শীতকালীন সবজি চাষে করণীয়

আগাম শীতকালীন সবজি চাষে করণীয় পাবনার ঈশ্বরদীতে বেশি লাভের আশায় শীতকালীন সবজির আগাম চাষ বাড়ছে। শুধু নিজেদের চাহিদার জন্যই নয়, বাণিজ্যিকভাবেও চাষ হচ্ছে এসব সবজি। কৃষকরা জানান, যে কোন ফসল আগাম চাষ হলে বাজারে চাহিদা বেশি থাকে। মুনাফাও বেশি হয়। এ বছর উঁচু জমিতে সবজি চাষে ঝুঁকছেন তারা। কম সময়ে কম খরচে বেশি মুনাফার জন্য ফুলকপি ও বাঁধাকপির জুড়ি নেই। বাণিজ্যিকভাবে আগাম সবজি চাষে আলোড়ন তুলেছেন উপজেলার ছলিমপুর ইউনিয়নের বক্তারপুর গ্রামের রবিউল ইসলাম বিশ্বাসের স্ত্রী নুরুন্নাহার। তিনি অন্যের জমি লিজ নিয়ে ৪-৫ বছর ধরে বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ করছেন। নিজেদের স্বাবলম্বী করার পাশাপাশি জেলার অর্থনৈতিক উন্নতিতে অবদান রাখছেন। তার স্বীকৃতি হিসেবে ২০১১ সালে বঙ্গবন্ধু জাতীয় কৃষি পদক পেয়েছেন। নুরুন্নাহার বসতবাড়ির আঙিনায় এবং বাড়ির পাশে ৫ বিঘা জমি লিজ নিয়ে সারাবছর বিভিন্ন জাতের সবজি চাষ করছেন। ক্ষেত থেকে সর...

বিস্তারিত পড়ুন
উন্নত প্রযুক্তিকৃষি প্রযুক্তিকৃষির প্রযুক্তিছাদে বাগানসাম্প্রতিক পোষ্ট

লেবু গাছের কলম করার পদ্ধতি

লেবু গাছের কলম করার পদ্ধতি লেবু গাছের গুটি কলম পদ্ধতি খুব সহজ। এর জন্য অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হয় না। এ কলম খুব সহজভাবে করতে পারেন। অন্যান্য ফলের গাছ থেকে লেবু গাছের গুটি কলম পদ্ধতির সফলতা তাড়াতাড়ি পাওয়া যায়। তাই এখনই জেনে নিন লেবু গাছের কলম করার পদ্ধতি সম্পর্কে- কলমের সময়: গুটি কলম করার উপযুক্ত সময় বৈশাখ-আষাঢ় মাষের মধ্যে। ইংরেজি জুন-আগস্ট মাসের মধ্যে। গাছ ও শাখা নির্বাচন: কলম করার জন্য দেড়-দুই বছর বয়সী গাছের ডাল নির্বাচন করতে হবে। বা এর বেশি বয়সী গাছের পেন্সিলের মতো মোটা ডালের মধ্যেও গুটি কলম করা যায়। মাতৃ গাছ থেকে পেন্সিলের মতো মোটা ডালকে বেছে নিতে হবে। পেন্সিলের মতো ডালটির মধ্যে একটি গিঁটের নিচে কলমটি করতে হবে। যা প্রয়োজন: বাকল তোলার জন্য ধারালো ছুরি, মাটির পেস্ট মোড়ানোর জন্য পলিথিন, পলিথিন দিয়ে ঢাকা মোড়কটি বাঁধার জন্য সুতলি এবং মাটির পেস্ট ইত্যাদি। মাটির পেস্ট:...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষির প্রযুক্তিচাষাবাদ পদ্ধতি

লিচুর রোগ প্রতিকার ও সার ব্যবস্থাপনা

লিচুর রোগ প্রতিকার ও সার ব্যবস্থাপনা লিচুগাছে প্রচুর ফুল আসার পরও নানা কারণে ফুলের দুই ভাগ ঝরে যায়। ফুল আসা, ফুল টিকে থাকা এবং ফুলের স্বাস্থ্য বহুলাংশে সার ব্যবস্থাপনার ওপর নির্ভর করে। সার ব্যবস্থাপনাঃ গাছের গোড়ায় ফেব্রুয়ারিতে একবার, মে মাসে আরেকবার এবং আগষ্ট মাসে আরেক বার সার দিলে লিচুর ফুল ও ফল ধারণক্ষমতা বাড়ে। হরমোন প্রয়োগঃ হরমোন প্রয়োগের ফলে ফুলঝরা বন্ধ হয়। সেচ দিলে ফল হয় স্বাস্থ্যবান। স্বাদ হয় কাঙিক্ষত। লিচুর ভালো ফলন পাওয়ার কৌশলগুলো নিচে দেওয়া হল: সার ব্যবস্থাপনাঃ গাছের গোড়ায় কোদাল দিয়ে কুপিয়ে সার ছিটিয়ে দিতে হবে। সার ছিটানোর পরে সেচ দিলে সারের কার্যকারিতা বাড়ে। গাছের বয়স যত বেশি সারের পরিমান তত বেশি হয় দুপুরে গাছের ছায়া যতটুকু স্থান দখল করে নেয় ঠিক ততটুকু জায়গা কোদাল দিয়ে কুপিয়ে গাছের বয়স সাত থেকে দশ বছর হলে গাছ প্রতি পয়তাল্লিশ কেজি গোবর, সাড়ে...

বিস্তারিত পড়ুন
কৃষির প্রযুক্তিফসল সংরক্ষণফসলের রোগ বালাই দমন

আমের গুটি ঝরা রোধে করণীয়

আমের গুটি ঝরা রোধে করণীয় আমচাষীদের অনেক সময় নানা ধরনের সমস্যা মোকাবিলা করতে হয়। এর মধ্যে আমের গুটিঝরা অন্যতম। গাছে গুটি আসার পর নানা কারণে ঝরে যায়। এসব কারণ ও তার প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করা হলো। প্রাকৃতিক কারণ : সাধারণত আমগাছে প্রতি মুকুলে ১০০০ থেকে ৬০০০টি পর্যন্ত পুরুষ ও স্ত্রী ফুল থাকে। তার মধ্যে প্রাথমিকভাবে প্রতি থোকায় জাতভেদে এক থেকে ৩০টি আমের গুটি ধরতে দেখা যায়। গুটি আসার ২৫ থেকে ৫০ দিনের মধ্যে প্রতি থোকায় মাত্র এক থেকে দু’টি গুটি থাকে। বাকি গুটি প্রাকৃতিক বা অভ্যন্তরীণ কারণে ঝরে যায়। তবে কোনো কোনো মুকুলে কদাচিৎ চার থেকে পাঁচটি আম ধরতে দেখা যায়। এ ক্ষেত্রে আমের আকার ছোট হয়। প্রতিকার : অতিরিক্ত গুটি ঝরে না পড়লে আমের আকার ছোট হয় এবং আমের গুণগতমান ও ফলন কমে যায়। গবেষণায় দেখা গেছে, প্রতিটি মুকুলে একটি করে গুটি থাকলে সে বছর আমের বাম্পার ফলন হয়। তবে প্রতি মুকুলে আমের সংখ্য...

বিস্তারিত পড়ুন