ফল চাষ

ছাদে ড্রাগন ফলের চাষ

ছাদে ড্রাগন ফলের চাষ

ছাদে ড্রাগন ফলের চাষ ড্রাগন ফলের গাছ দেখতে একদম ক্যাকটাসের মতো । পাতাবিহীন এই গাছটি দেখে অনেকেই একে ক্যাকটাস বলেই মনে করেন। ডিম্বাকৃতির উজ্জ্বল গোলাপি রঙের এই ফলের নাম শুনলে কেমন জানি অদ্ভুত মনে হয় । এ আবার কেমন ফল । এটা কি আদৌ খাবার উপযোগী কিনা মনে সন্দেহ জাগে । ফলের ভিতরের অংশ লাল

বাড়ির ছাদে বারমাসী আমড়া চাষ পদ্ধতি

বাড়ির ছাদে বারমাসী আমড়া চাষ

বাড়ির ছাদে বারমাসী আমড়া চাষ পদ্ধতি আমড়া চাষ তাও আবার বাড়ির ছাদে। শুনতে অবাক লাগলেও তা থেকে আপনি পেতেপারেন বাড়তি আয়। ছাদে উপর টবে অতি সহজেই বারমাসী আমড়ার চাষ করা যায়। একটি কলমের চারা থেকে মাত্র এক বৎসরের মধ্যেই ফল পাওয়া সম্ভব। আমড়ার চাষ পদ্ধতিও খুব সহজ। বীজ থেকেও চারা করে টবে লাগানো যায়। এক্ষেত্রে

ছাদে কামরাঙার চাষ পদ্ধতি

ছাদে কামরাঙার চাষ পদ্ধতি কামরাঙা একটি অতি পরিচিত ফল । গ্রাম বাংলায় প্রায় প্রতিটি বাড়িতেই কামরাঙা গাছ দেখতে পাওয়া যায় । ভিটামিন সি সমৃদ্ধ এই ফলের স্বাদ কিছুটা টক-মিষ্টি । কিন্তু থাই জাতের কামরাঙার স্বাদ মিষ্টি । এই মিষ্টি কামরাঙা অতি সহজেই ছাদে টবে সহজেই চাষ করা যায় । ফলনও খুব ভাল হয় । একটি

​তরমুজ চাষ করে স্বাবলম্বী দুই বন্ধু

তরমুজ চাষ করে স্বাবলম্বী দুই বন্ধু ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তরমুজ চাষ করে অর্থনৈতিকভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন দুই বন্ধু। গ্রীষ্মকালীন রসালো ফল তরমুজ এখন ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় সারা বছরই চাষ হচ্ছে। ফরমালিন ও  বিষমুক্ত এই তরমুজের বাজারে চাহিদাও রয়েছে ভালো। তরমুজ চাষ করে সাফল্য দেখিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার রামরাইল ইউনিয়নের মোহাম্মদপুর গ্রামের দুই বন্ধু জামাল উদ্দিন এবং মহিউদ্দিন। এদের মধ্যে জামাল

বাড়ির ছাদে বা বাগানে আঙ্গুর চাষ

বাড়ির ছাদে বা বাগানে আঙ্গুর চাষ বাংলাদেশে আঙ্গুর চাষের সম্ভাবনা প্রবাদ আছে আঙ্গুর ফল টক। আর এ কথাটি আমাদের জন্য বেশ কার্যকর এ কারণে যে এই ফলটি আমরা এদ্দিন ফলাতে পরিনি। পুরোটাই আমদানী করে যেতে হয়। উচ্চমূল্যের কারণে বরাবরই সাধারণের ধরা ছোঁয়ার বইরে থাকে। কখনও কেউ অসুস্থ হলে কিংবা কালেভ্রদ্রে সাধারণ পরিবারে আঙ্গুর খাওয়া হয়।

থাই পেয়ারার চাষ

থাই পেয়ারার চাষ এও সি ভিটামিন সমৃদ্ধ বহুবিধ গুণের জন্য নিরক্ষীয় অঞ্চলে পেয়ারাকে বলা হয় আপেল। বাংলাদেশের সর্বত্র কম-বেশি পেয়ারার চাষ হয়। বাংলাদেশে বর্তমানে ২৪ হাজার ৫১৫ হেক্টর জমি থেকে ৪৫ হাজার ৯৯০ মেট্রিক টন পেয়ারা উৎপন্ন হয়। ক’বছর আগেও শীতকালে পেয়ারা পাওয়া যেত না। দেশের কৃষিবিজ্ঞানীদের গবেষণা ও অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে এখন শীতকালেও সুস্বাদু

পেয়ারা খেলে যে লাভ

পেয়ারা খেলে যে লাভ পেয়ারা স্বাদ, পুষ্টিগুণ আর স্বাস্থ্যের কথা মাথায় রাখলে পেয়ারা খেলে প্রচুর লাভ। স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য প্রতিদিনের খাদ্যতালিকায় পেয়ারা রাখা যেতে পারে। এতে আছে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট, ভিটামিন ‘সি’ ও লাইকোপেন—যা স্বাস্থ্যের জন্য খুবই দরকারি। পেয়ারার বিশেষ পাঁচটি গুণের মধ্যে রয়েছে, এটি ডায়াবেটিসের জন্য উপকারী, রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়, চোখের জন্য ভালো, পেটের জন্য

পেঁপের পটাশ সারের ঘাটতি

পেঁপের পটাশ সারের ঘাটতি সমস্যার লক্ষণঃ পটাশের ঘাটতি হলে পেপের পুরাতন পাতার শিরার মধ্যবর্তী অংশ হলুদ হয়ে যায়। পাতা কিনারা থেকে শুকাতে শুরু করে আস্তে আস্তে কেন্দ্রের দিকে অগ্রসর হয়। সমস্যা দেখা দেয়ার পূর্বে করণীয়ঃ ১. মাটি পরীক্ষা করে জমিতে সার প্রয়োগ করুন ২. সুষম সার ব্যবহার করা ৩. একই জমিতে বার বার একই ফসল

    Top