বনসাই চাষ ও যত্ন

বনসাই চাষ ও যত্ন

বনসাই একটি জীবন্ত শিল্প।একটি শক্ত কান্ড বিশিষ্ট গাছ কে একটি ছোট পটে রেখে বছরের পরবছর একে বাঁচিয়ে রাখার শিল্পকেই বনসাই বলে।প্রাণের স্পন্দন আর শিল্পকর্মের নান্দনিকতা এক সুতোয় প্রকাশ পায় বলেই বনসাই জীবন্ত শিল্পকর্ম হিসেবে পরিচিত। নগরে ইটের স্থাপনার মধ্যে এক টুকরো সবুজের উপস্থিতি এবং স্বল্প পরিসরে সহজ যত্ন-আত্তিতে বনসাই সংগ্রহ করা যায় বলেই বৃক্ষপ্রিয় মানুষের কাছে বনসাইয়ের কদর যেন একটু বেশিই।

বহু বছর আগে চীন দেশে এই শিল্পের সূচনা হলেও পরবর্তী আজকাল শৌখিন সংগ্রহের পাশাপাশি ঘর সাজাতে এবং অন্যান্য ইন্টেরিয়র ডিজাইনের কাজে বনসাই ব্যবহার করা হয়। মূল গাছের সব বৈশিষ্ট্য অক্ষুণ্ন রেখে, অগভীর ছোট পাত্রে বৃক্ষজাতীয় গাছের ক্ষুদ্র সংস্করণ গড়ে তোলার কাজকেই বনসাইশিল্প বলা হয়। ক্ষুদ্র এই সংস্করণটিই বনসাই হিসেবে পরিচিত।

গাছ নির্বাচন[সম্পাদনা]

ম্যাপল গাছের বনসাই

যে সকল গাছের বৃদ্ধি ধীরে ধীরে হয়। গাছের কান্ড মোটা হয়। বছরে একবার পাতা ঝরে। গাছের বয়স হলে গাছের ছাল মোটা হয়। গাছের ঝুরি নামে এমন গাছ, শিকড় কেটে দিলে ঝুরি গাছের শিকড়ের কাজ করে। গাছ অনেকদিন সতেজ থাকে এবং গাছের বয়স অনুযায়ী বেঁচে থাকে। যেখানে বা যেদেশে বনসাই করা হবে সে স্থানের আবহাওয়া উপযোগী হতে হয়।

অনেক বড় একটি পাকুড় গাছ

বাংলাদেশে বনসাই করা যেতে পারে এমন গাছগুলো হল:

  • বট * বকুল * শিমুল * পাকুড় * তেতুল * শিবীষ * বাবলা * পলাশ * বিলিতি বেল * ছাতিম * হিজল * জাম *নিম * বেলি * গাব * শেফালী * পেয়ারা * হেওরা * ডালিম * তমাল * জাম্বুরা * কমলা * তুলসী * বহেরা * বরই * কামিনী * মেহেদী * কড়ই * অর্জুন * জারুল * জুনিপার * নরশিংধ * করমচা * লুকলুকি * কৃষ্ণচূড়া * কদবেল * দেবদারু * সাইকেশ * হরিতকি * কামরাঙা * আমলকি * নীলজবা * লালজবা * অশ্বথ বট * নুডা বট * পাকুর বট * কাঠলি বট * রঙ্গন ছোট * রঙ্গন বড় * নিম সুন্দরী * লাল গোলাপ * খই বাবলা * কনকচাঁপা * গোলাপজাম * পাথরকুচি * সাদা নয়নতারা * স্টার কুইন * বাগান বিলাস * হেলিকুনিয়া * লাল টাইমফুল * গোলাপিটা ফুল * ক্যাকটাস গোল * ক্যাকটাস লম্বা * পান বিলাস * লালা পাতাবাহার * লাল জামরুল * চায়না বাঁশ * সন্ধ্যা মালতী হলুদ * যজ্ঞ ডুমুর * আলমন্ডা

নিজেই তৈরি করুন বনসাই:

যে গাছটির বনসাই তৈরি করবেন, সেটার প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য ভালোভাবে জেনে নিন। নির্বাচিত গাছের বীজ থেকে চারা তৈরি করে নিতে পারেন অথবা নার্সারি থেকে চারা সংগ্রহ করে তা থেকে বনসাই তৈরি করতে পারেন। বনসাইয়ের মাটি তৈরির ক্ষেত্রে দো-আঁশ বা পলিমাটির সঙ্গে পরিমিত জৈব সার ব্যবহার করুন।

পানি নিষ্কাশন ও গাছের বৃদ্ধি রোধে বিশেষভাবে তৈরি টবেই বনসাইয়ের চারা রোপণ করতে হবে। এই টবের নিচের দিকে পানি নিষ্কাশনের এবং কিনারা বরাবর দুই বা ততোধিক ছিদ্র থাকে, যা তার পেঁচিয়ে গাছের বৃদ্ধি কমিয়ে রাখে।

কিছুদিন বৃদ্ধির পর গাছটির জন্য উপযুক্ত আকৃতি নির্ধারণ করে ডালপালায় তার পেঁচিয়ে রাখার পাশাপাশি নিয়মিত অবাঞ্ছিত ডাল-পাতা ছাঁটাই করতে থাকুন। সময়ের সঙ্গে সঙ্গে সৃষ্টি হবে আপনার বনসাইটি। ঢাকার পাশাপাশি রাজশাহীতেও বনসাইয়ের প্রসার ব্যাপক

মাটি তৈরি

বনসাই চাষের জন্য দো-আঁশ মাটি সবচেয়ে উপযোগী। এছাড়া এতে কম্পোস্ট সার ,ইটের গুড়ো, বালি, পাথর এর গুড়ো,পোড়ামাটির গুড়ো,ছাই ইত্যাদি মেশানো উচিৎ। সম্ভব হলে এতে কেঁচো সার, গোবর সার ইত্যাদি মেশানো উচিৎ। মাটি এমন ভাবে তৈরি করতে হবে যাতে পানি নিষ্কাশন ভাল হয়।

চারা সংগ্রহ

কাটিং হতে গৃহীত চারা

বনসাই এর জন্য চারা গাছ যে কোন স্থান থেকে সংগ্রহ করা যায়। বীজ থেকেও চারা সংগ্রহ করা যায়, আবার কলমের চারাও সংগ্রহ করা যায়। কলমের মধ্যে কাটিং,লেয়ারিং,এয়ার লেয়ারিং ইত্যাদি উপায়ে চারা সংগ্রহ করা যায়। নার্সারি থেকে চারা লাগানো যায়। আবার, বট, পাকুড়, অশ্বত্থ গাছের চারা পুরাতন দেয়াল,পুরাতন ইটের স্তুপ থেকেও সংগ্রহ করা যায়।

পট বা টব

বনসাই এর পাত্র

বনসাই এর জন্য তেমন বড় পাত্র লাগে না। অপেক্ষাকৃত অনেক ছোট পাত্রে বনসাই চাষ করা হয়। বনসাই এর টব বা পটের নিচে পানি নিষ্কাশন এর জন্য ছোট ছিদ্র থাকতে হয়।

 

একটু আন্তরিকতাপূর্ণ দেখভাল আপনার বনসাইটিকে আরও সুন্দরভাবে গড়ে তুলতে সাহায্য করবে। এ ক্ষেত্রে খুব বেশি ঝামেলার দরকার হয় না। আপনাদের জন্য বনসাইয়ের পরিচর্যার নিয়ম সমূহ জানানো হল:

১.  গাছকে নিয়মিত খাবার দিন। যেমন, কালো মাটি, বালু বা ইটের চূর্ণ, সরিষা বা নীলের খোসা ইত্যাদি।

২. বনসাই অতিরিক্ত পানিবদ্ধতা এবং রোদ— কোনোটাই সহ্য করতে পারে না। তাই এ বিষয়ে খেয়াল রাখুন।

৩. বনসাই ধুলা-ময়লামুক্ত রাখতে পানি দিয়ে পাতা ও ডাল মুছে দিন।

৪. টবের মাটিতে পোকামাকড় কিংবা ছত্রাকের প্রাদুর্ভাব হলে সঠিক মাত্রায় ওষুধ প্রয়োগ করুন।

৫. এমন স্থানে রাখুন, যেখানে আলো-বাতাস চলাচল করে কিন্তু লোকজনের যাওয়া-আসা কম।

৬. নির্ধারিত আকৃতি ঠিক রাখতে নির্ধারিত ডালপালা বাদে ছাঁটাই করুন।

৭. বেশি ব্যস্ত থাকলে সঠিক মাত্রায় তরল বা স্পেস সার প্রয়োগ করতে পারেন।

৮. অবশ্যই প্রতি এক বছর অন্তর টবের মাটি পরিবর্তন করুন।

৯. গাছের ছাঁটাইসহ অন্যান্য কাজে বনসাই পরিচর্যার জন্য নির্ধারিত যন্ত্রপাতি ব্যবহার করুন।

আপনার বনসাইটি কোনো কারণে বনসাইটি বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হলে, যেখান থেকে কিনেছেন, তাদের সঙ্গে যোগাযোগ করুন।ব্যক্তিগতভাবে বনসাই সংগ্রহ করেন এমন কয়েকজনের সঙ্গে কথা বলুন।খেয়াল রাখবেনকখনোই শুধু দামের ভিত্তিতে বনসাইয়ের ভালো-মন্দ নির্বাচন করবেন না।

বনসাই ক্রয়কালে খেয়াল রাখুন—

#বনসাইটির রুট বেইস ভালো কি না?

#প্রাকৃতিকভাবেই গাছটি সৌন্দর্য প্রকাশ করছে কি না।

#গাছের বাকলে বয়সের ছাপ স্পষ্ট কি না। ভালো

#বনসাইয়ের মূল কাণ্ড মসৃণ ও দাগমুক্ত হয়।

#বনসাইটি আদি বৃক্ষের বৈশিষ্ট্য বহন করে কি না।

শিল্পকর্মের সঙ্গে আপনার সম্পৃক্ততা নিরেট গৃহসজ্জার বস্তু থাকে না, এটি আপনারই একটি অংশ হয়ে ওঠে। সবুজের উপস্থিতি আপনাকে শত ব্যস্ততার মধ্যেও প্রশান্ত রাখে এবং আরও উদ্যমী করে তোলে। একটি প্রাণের উপস্থিতিই অন্য একটি প্রাণের উৎসাহ জোগায়। এই বনসাই হতে পারে আপনার সেই প্রাণের উৎস।

শখের পেশা বনসাই

তারিন তাসমী
মানুষের শখ বিচিত্র। বিচিত্র শখের পেশা। তবে শখের পেশায় সাফল্যের সম্ভাবনা বেশি। মানুষ সাধারণত প্রকৃতির সান্নিধ্য পছন্দ করে। কারণ প্রকৃতি মনকে প্রশান্ত করে। কিন্তু শহুরে যান্ত্রিক জীবনে প্রকৃতির ছোঁয়া দুর্লভ। তাই শহুরে মানুষকে প্রকৃতির ছোঁয়া দিতে বনসাই হতে পারে একটি বিকল্প। সে কারণেই ড্রয়িংরুম, অফিস রুমসহ বিভিন্ন শো প্লেসে বনসাই নাগরিক জীবনকে দিচ্ছে প্রকৃতির ছোঁয়া। বর্তমানে বনসাই একটি শিল্প, এ শিল্পের সাথে জাড়িয়ে আপনিও আপনার পেশাকে বদলে নিতে পারেন। একটি হতে পারে আপনার শখের পেশা।

বনসাই কি
বনসাইয়ের ইতিহাস বহু পুরনো। ধারণা করা হয় প্রায় ২০০০ বছর পূর্বে চীনে এর শুরু। পরবর্তী সময়ে জাপানে বনসাই বিস্তৃতি লাভ করে। বনসাই শব্দটি জাপানি। বন শব্দের অর্থ ছোট পাত্র এবং সাই শব্দের অর্থ গাছ। অর্থাৎ বনসাই মানে দাঁড়াচ্ছে, ছোট পাত্রে গাছ। বনসাই মূলত ছোট পাত্রে বিশেষ পদ্ধতিতে গাছ লাগানোকে বলা হয়।

কীভাবে চাষ করবেন
সাধারণত বনসাইয়ের চারা বা গাছ নির্বাচন করা জরুরি। কারণ সঠিকভাবে গাছ নির্বাচন না করলে বনসাই বেশি দিন টিকে থাকে না। বনসাইয়ের জন্য ফলদ ও বনজ গাছ নির্বাচন করতে পারেন। বনসাই তৈরির জন্য উপযুক্ত প্রজাতির গাছ হলোÑ বট, পাকুর, হিজল, অশ্বথ, ডুমুর, ডালিম, কদম, বাগানবিলাস, বোতল ব্রাশ, নিম, জামরুল, তেঁতুল, করমচা ও কৃষ্ণচূড়া ইত্যাদি। আর টবের মধ্যে দোআঁশ মাটির সাথে জৈবসার মিশিয়ে বনসাইয়ের মাটি তৈরি করা হয়। টবের পানি নিষ্কাশনের ছিদ্রের ওপর ইটের কুচির পরিবর্তে এক টুকরা তারের জালি রেখে তা কিছু কাঁকর দিয়ে ঢেকে দিতে হবে। রোদ নেই কিন্তু আলো-বাতাস আছে এমন জায়গায় রাখতে হবে।

উপকরণ
বনসাই গাছের জন্য প্রাথমিকভাবে যে জিনিসটি দরকার তা হলো পট। পট না হলে চারা কোথায় তৈরি বা গাছ কোথায় রাখবেন। বনসাইয়ের জন্য ঢাকায় ভালো পট না পেলেও রাজশাহীতে পাওয়া যায় এবং খুব মজবুতও। এরপর বনসাইয়ের ডাল কাটার জন্য সিকেচার, পাতা কাটার জন্য কাঁচি, ডালের গোড়া সরানোর জন্য কনকেক এবং তার কাটার জন্য ওয়্যার টাকার প্রয়োজন বলে জানান জাতীয় উদ্যান ও বলধা বাগানের ফরেস্ট অফিসার মজিবুর রহমান।

স্থান নির্বাচন
বনসাই চাষ করতে চাইলে স্থান নির্বাচনের দিকে গুরুত্ব দিতে হবে। কারণ আলো-বাতাসের অভাবে গাছ মারা যেতে পারে। আবার রোদ আছে এমন জায়গায় বনসাই চাষ করা যাবে না। আলো-বাতাস আছে এমন স্থান নির্বাচন করাই বাঞ্ছনীয়। যেসব স্থানে বনসাই তৈরি করতে পারেন-ফ্ল্যাটের বারান্দায়, বাসার ছাদে অথবা পর্যাপ্ত পরিমাণে আলো-বাতাস ঢোকে এমন ঘরে। এক একটি বনসাই ১৪-১৮ ইঞ্চির মধ্যে রাখাই ভালো।

বনসাই তৈরির ধাপ
বনসাই তৈরির জন্য কা-, শেকড়, শাখা-প্রশাখা ও পাতা বৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণ করাই যথেষ্ট নয়। টবের ছোট গাছে প্রকৃতির কোলে বেড়ে ওঠা বয়োবৃদ্ধ গাছের সুঠাম ভঙ্গিমায় আনার চেষ্টা করতে হবে বলে জানান বলধা বাগানের ফরেস্ট অফিসার মজিবুর রহমান।
তিনি আরো বলেন, বনসাইকে যে মডেলের রূপ দেয়া হবে তা স্থির করে শাখা বাছাই করা দরকার। জোড়া পাতার কক্ষ থেকে কা-ের দুই পাশের দুটি শাখা গজায়। বাছাই পদ্ধতি অনুসারে এর একটি রাখতে হবে।

শাখা ছাঁটাই
বনসাইয়ের বয়স ৩-৪ বছর হলে তখন প্রুনিংয়ের প্রয়োজন হয়। বাছাই করা মোটা শাখাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কাটতে হবে।
তার বাঁধা
কা- বা শাখাকে সুন্দর, ভঙ্গিমায় আনতে যেসব কৃত্রিম উপায় অবলম্বন করা হয় তার বাঁধা তাদের মধ্যে অন্যতম। সরল শাখায় তার জড়িয়ে আঁকাবাঁকা রূপ দেয়া যায়।

উপার্জন
বাংলাদেশে একটা সময় বনসাই দুর্লভ ছিল। বর্তমানে অনেকেই বনসাই করছেন। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে কাজ করতে মানুষ ভালোবাসে। শখের নেশা থেকে পেশা হিসেবে ক্যারিয়ারের জন্য অল্প বিনিয়োগ করে ভালো আয় করতে পারেন বনসাই তৈরি করে। এ পেশায় বাড়িতে বসে ৫০০০ থেকে ৮০০০ টাকা বিনিয়োগ করে মাসে ১৫ থেকে ৩০ হাজার টাকা আয় করা সম্ভব। বনসাইয়ের জন্য বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের সাথে যোগাযোগ রাখতে পারেন, কারণ এরাই মূলত আপনার ক্রেতা। যেমন হাসপাতাল, ব্যাংক, রেস্তোরাঁ, বহুজাতিক কোম্পানি, শপিং কমপ্লেক্স সাজানোর জন্য বনসাই প্রয়োজন হয়।

ভালো করতে হলে
বনসাই একটি সৃষ্টিশীল কাজ। এর মাধ্যমে আনন্দ পাওয়া যায়। বনসাই করতে হলে শ্রম দিতে হবে। এর সাথে সব সময় লেগে থাকতে হবে। বনসাই যেমন কঠিন আবার তেমনি সহজ। প্রশিক্ষণ ছাড়া বনসাই করা সম্ভব নয়। এর সম্পর্কে ভালো ধারণা না থাকলে সফলতা পাওয়া কঠিন। তরুণ-তরুণীদের বর্তমানে বনসাইয়ের প্রতি বেশ ঝোঁক রয়েছে। তারা প্রশিক্ষণ নিয়ে আন্তরিকভাবে কাজ করলে সফলতা পাবে নিশ্চিত।
প্রশিক্ষণ পেতে যোগাযোগ করতে পারেন, রেডিয়েন্ট ইনস্টিটিউট অব ডিজাইন কিংবা জাতীয় উদ্যান ও বলধা বাগান কর্তৃপক্ষের সাথে।

বনসাই তৈরির কিছু বিশেষ কলা-কৌশল রয়েছে। যেমন প্রুনিং, লিফট্রিমিং, ওয়াইরিং, ক্লাম্পিং, গ্রাফিটং, ডিফলিয়েশন প্রভৃতি। বনসাই তৈরির জন্য পট বা ‘ট্রে’ নির্বাচনও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। পট গোলাকার, ডিম্বাকার, বর্গাকার ইত্যাদি বিভিন্ন আকারের হয়। চীনে কাঠের পাত্র বা রৌপ্য নির্মিত পাত্রে বনসাই তৈরির ঐতিহ্য রয়েছে।

Top
%d bloggers like this: