ভুট্টা ক্ষেতে অজ্ঞাত রোগ, পাশে নেই কৃষি কর্মকর্তারা

প্রতিবছরের মতো এবারো সবুজ ভুট্টা গাছে ঢাকা পড়েছে গাইবান্ধার বিস্তীর্ণ অঞ্চল। দূর থেকে বালু চর জুড়ে সবুজের ঢেউ দেখে চোখ জুড়ালেও, কাছে গেলে আঁচ করা যায় ভুট্টার আবাদ নিয়ে কৃষকের চাপা কষ্ট।

নানা ওষুধ প্রয়োগ করেও ভুট্টার ক্ষেতে অজ্ঞাত রোগের আক্রমণ ঠেকাতে পারছেন না তারা। কৃষকদের অভিযোগ, এ দুঃসময়ে কৃষি কর্মকর্তাদেরও পাশে পাচ্ছেন না তারা।

গাইবান্ধার ফুলছড়ি উপজেলার রসুলপুর চরে কৃষকেরা অন্য বছরের মতো এবারো ভুট্টার চারা রোপণ করেন। পরিমাণ মতো সার পানি দেয়ায় কোনো কোন ক্ষেতে বেশ হৃষ্টপুষ্ট ভুট্টার মোচাও বের হয়েছে। তবে দু’এক বিঘা জমি পরপর চোখ ফেললে দেখা যায় উল্টো চিত্র। এই জমিগুলোতে পরিপূর্ণতা পাচ্ছে না ভুট্টা। এতে একদিকে যেমন ভুট্টার ফলন নিয়ে শঙ্কিত অন্যদিকে দাম নিয়েও দুশ্চিন্তাগ্রস্ত।

তাদের এই বিপর্যয়ের সময় কৃষি কর্মকর্তাদেরও পাশে পাচ্ছেন না বলে অভিযোগ ভুট্টা চাষিদের। আর কৃষি কর্মকর্তাদের মাঠে না যাওয়ার জন্য ভৌগলিক অবস্থানের দোহাই দিলেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর গাইবান্ধার অতিরিক্ত উপ-পরিচালক শওকত ওসমান। জেলায় এবার ১১ হাজার হেক্টর জমিতে ভুট্টার চাষ হয়েছে। আর উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৮৮ হাজার মেট্রিক টন।

Top
%d bloggers like this: