নোয়াখালীতে কৃষক-ক্ষেতমজুর সমাবেশ

নোয়াখালীতে কৃষক-ক্ষেতমজুর সমাবেশ

নোয়াখালীতে কৃষক-ক্ষেতমজুর সমাবেশ

প্রকৃত ভূমিহীন-বর্গাচাষি-ক্ষুদ্র কৃষকদের মধ্যে কৃষিকার্ডের মাধ্যমে কৃষিঋণ, টিআর, কাবিখা, স্বল্পমূল্যে কৃষি উপকরণ সরবরাহসহ নানা দাবিতে নোয়াখালীতে কৃষক-ক্ষেতমজুর সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। সমাজতান্ত্রিক ক্ষেতমজুর ও কৃষক ফ্রন্ট জেলা শাখার উদ্যোগে আজ রবিবার জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সামনে এ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।

পরে জেলা প্রশাসকে স্মারকলিপি প্রদান করা হয়। এর আগে একই দাবিতে শহরে ব্যানার, ফেস্টুন ও লাল পতাকা সজ্জিত একটি প্রতিবাদ মিছিল বের করা হয়। সংগঠনের জেলা আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা তারকেশ্বর দেবনাথ নান্টুর সভাপতিত্ব সমাবেশে বক্তব্য দেন কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক মনজুর আলম মিঠু, বাসদ (মার্কসবাদী) জেলা কমিটির আহ্বায়ক দলিলের রহমান দুলাল, নবগ্রাম অঞ্চলের কৃষক প্রতিনিধি মো. ইব্রাহিম, চরকলমীর কৃষক প্রতিনিধি আরশাদ আলী প্রমুখ। সমাবেশ পরিচালনা করেন কৃষক ফ্রন্টের জেলা সংগঠক বিটুল তালুকদার।

বক্তারা দেশব্যাপী সকল বিভাগে অনিয়ম, ঘুষ-দুর্নীতি; মাদক-জুয়া ও চাঁদাবাজি বন্ধ; প্রকৃত ভূমিহীন-বর্গাচাষি-ক্ষুদ্র কৃষকদের মধ্যে কৃষিকার্ডের মাধ্যমে কৃষিঋণ প্রদান; টিআর, কাবিখা, স্বল্পমূল্যে কৃষি উপকরণ সরবরাহ; খাস জমি প্রকৃত ভূমিহীনদের বরাদ্দ দেওয়া; ইউনিয়নভিত্তিক সরকারি ক্রয়কেন্দ্র স্থাপন; আর্মি রেটে রেশনিং প্রদান; উপকূলীয় অঞ্চলে পর্যাপ্ত আশ্রয়ন প্রকল্প স্থাপন এবং নদী ভাঙনরোধসহ ১৩ দফা দাবি বাস্তবায়নে সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

বক্তারা বলেন, দেশের প্রায় ৮০ ভাগ মানুষ কৃষির সঙ্গে যুক্ত। দেশের মানুষের খাদ্য এবং শিল্পের কাঁচামালের উৎস এ কৃষি। অথচ সরকারের নানামুখী গণবিরোধী সিদ্ধান্তের কারণে কৃষক-ক্ষেতমজুরদের জীবন আজ সর্বশান্ত। সরকারি মহলের বাক-চাতুর্য্যের আড়ালে চলছে কৃষি ব্যবস্থা ধ্বংসের আয়োজন। প্রতিবছর বাজেটে কৃষিখাতে বরাদ্দ কমছে। বন্যা-খরায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষক উৎপাদিত ফসলের ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হয়ে নিঃস্ব হচ্ছে। খাস জমি প্রকৃত ভূমিহীনদের বঞ্চিত করে মৎস্য প্রজেক্টের নামে প্রভাবশালীরা আত্মসাত করছে, ভূমিহীনদের খাস জমি বরাদ্দের নামে চলছে ব্যাপক হয়রানি ও ঘুষ-দুর্নীতি। কৃষিঋণ, টিআর, কাবিখা, খাদ্যবান্ধব কমসূচির নানা অনিয়ম-দুর্নীতির ঘটনা পত্রপত্রিকায় প্রকাশিত হয়েছে। যে কৃষকরা ফসল উৎপাদন করে অথচ তারা অনাহারে অর্ধাহারে জীবন কাটাচ্ছে, তাঁদের জন্য রেশনিং, অবসর ভাতা নেই।

সমাবেশ থেকে কৃষি-কৃষক তথা ১৬ কোটি মানুষের জীবন-জীবিকা রক্ষার্থে জেলা কৃষক ফ্রন্ট উত্থাপিত দাবি আদায়ে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলন গড়ে তোলার আহ্বান জানানো হয়।

সূত্রঃ কালেরকন্ঠ

Top
%d bloggers like this: