জেনে নেই টমেটোর গুনাগুন

সবজি হিসেবে টমেটোর কোনো জুড়ি নেই। একটি সুস্বাদু ও পুষ্টিকর খাবারে জন্য গোটা বিশ্বেই টমেটো সমাদৃত। এছাড়া টমেটোতে থাকা ভিটামিন এ, বি, সি, কে, ক্যালসিয়াম, পটাসিয়াম, লাইকোপিন, ক্রোমিয়ামসহ অন্যান্য পুষ্টি উপাদান মানব দেহের জন্য খুবই প্রয়োজনীয়।

১. গবেষণায় দেখা গেছে দিনে অন্তত ১টি টমেটো শরীরের ৪০ শতাংশ পর্যন্ত ভিটামিন সি’র অভাব দূর হয়।

২. বিশ্বের বৃহত্তম খাদ্য যুদ্ধ টমেটোকেন্দ্রিক। তবে তা খাওয়ার জন্য নয়। টমেটো একে অন্যের গায়ে নিক্ষেপ করা হয়। আনুমানিক ৪০ টন ওজনের ১৫০,০০০টি টমেটো নিক্ষিপ্ত করা হয় একটি টমেটো উৎসবে। আর টমেটো উৎসবের নিয়ম হলো টমেটো নিক্ষেপ করার আগে এগুলোকে চটকিয়ে নিতে হবে।

৩. উদ্ভিদবিদ্যায় টমেটো একটি ফল কিন্তু মার্কিন সুপ্রিম কোর্ট এর রায়ে বলা হয়েছে টমেটো একটি সবজি।

৪. টমেটো নিউ জার্সির প্রধান সবজি এবং আরকানের প্রধান ফল ও সবজি।

৫. আমেরিকায় পৃথিবীর সবচেয়ে বেশি ওজনের টমেটোটি উৎপাদিত হয়েছে,যার ওজন প্রায় ৩.১৫কেজি।

৬. ক্যালিফোর্নিয়ায় পৃথিবীর প্রায় অর্ধেক টমেটো উৎপাদিত হয়।

৭. ব্রিটিশ এবং উত্তর আমেরিকার ১৮২০ জন পর্যন্ত লোক মনে করেন যে টমেটো বিষাক্ত।

৮. টমেটো একটি বিষাক্ত ফলওয়ালা বুনো গাছের সদস্য এবং এর পাতাও বিষাক্ত।

৯. ঘনত্বের ওপর নির্ভর করে আধা ইঞ্চি টমেটো সস বোতলে ভরতে এক সেকেন্ড সময় লাগে।

১০. টমেটো জুস ওহিওর একটি রাষ্ট্রীয় পানীয়।

১১. একজন ব্যক্তির জন্য একটি টমেটো গাছ ১৫ কেজি টমেটো উৎপাদন করতে পারে।

১২. টমেটো ক্যান্সার থেকে রক্ষা করে।

১৩. কখনোই টমেটো ফ্রিজে সংরক্ষণ করা উচিত নয় কারণ এতে টমেটোর পুষ্টিমান কমে যায়।