জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বিকল্প উপায়ে পোকা দমন

জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে বিকল্প উপায়ে পোকা দমন

দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে কৃষকের মাঝে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে কৃষিক্ষেতে বিকল্প উপায়ে পোকা দমন। দির্ঘদিন থেকে কীটনাশক ব্যবহার করে কৃষিক্ষেতে পোকা দমন করলেও সম্প্রতি বরেন্দ্র বহুমুখি প্রকল্প ও উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ এর উদ্যেগে কৃষকদের কীটনাশক ছাড়াই বিকল্প উপায়ে কৃষিক্ষেতে পোকা দমন শুরু হয়েছে।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, বোরো ক্ষেতে গাছের ডাল, বাশের কঞ্চি স্থাপন করা হয়েছে। সেখানে পাখিরা বসে ফসলের ক্ষতিকারক পোকা ধরে ধরে খাচ্ছে।

কৃষকেরা জানায়, জমিতে গাছের ডাল ও বাশের কঞ্চি স্থাপন করা হলে সেখানে নিয়মিত পাখি বসে এবং ফসলের ক্ষতিকারক পোকা ধরে খায়। এতে করে ফসল পোকার হাত থেকে রক্ষা পায়। এ কারন্ইে ফসলে আর কীটনাশক ব্যবহার করতে হয়না ।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা হামিম আশরাফ জানান, কৃষিক্ষেতে কীটনাশক ব্যবহার করে পোকা দমন করলে জমিতে থাকা ব্যাটটেরিয়া ও পোকামাড়ক ধ্বংস হয়ে যায়। এতে করে জমির উর্বরা শক্তি ও কমে যায়। অপরদিকে বিষাক্তযুক্ত ফসল মানবদেহের ক্ষতি করে । কিন্তু বিকল্প উপায়ে জমির ক্ষেতে পার্চিং করলে সেখানে পাখিরা বসে ফসলের ক্ষতিকারক পোকা খেয়ে ফেলে এতে ফসল পোকার হাত থেকে রক্ষা পায় । পক্ষান্তরে জমির উর্বরা শক্তি ধরে রাখে । এ কারনে কৃষকদেরকে বিকল্প উপায়ে পোকাদমনে উদ্বূদ্ধ করা হয়েছে।

উপজেলা বরেন্দ্র কর্মকর্তা ও বরেন্দ্র বহুমুখি প্রকল্পের সহকারি প্রকৌশলী আজমল হোসেন জানান, বরেন্দ্র সেচ প্রকল্পের আওতায় বোরো চাষীদেরকে বিকল্প উপায়ে পোকা দমন করতে উদ্ভুব্দ করতে প্রথমে বরেন্দ্র প্রকল্পের উদ্যেগে প্রতিটি বোরো ক্ষেতে পার্চিং করা হয়েছে। পার্চিং এর সুবিধা কৃষকেরা বুঝতে পেরে এখন তারা নিজেরাই পার্চিং শুরু করেছেন। তিনি বলেন, বরেন্দ্র বহুমুখী প্রকল্প শুধু জমিতে সেচই দেয়না কৃষকদেরকে ভালো ফসল উৎপাদনের জন্য উদ্ভুব্ধ করায় এবং জমিতে সেচ দেয়ার পাশাপাশি উপজেলার ৯টি গ্রামে প্রায় ২হাজার পরিবারকে বিশুদ্ধ সরবরাহ করছে। এতে শুস্ক মৌসুমে যখন পানির তিব্র সংকট থাকে তখন ওই আশপাশের জনসাধারনের একমাত্র ভরসা হয়ে দাড়ায় বরেন্দ্র বহুমুখী প্রকল্পের সরবরাহকৃত বিশুদ্ধ খাবার পানি।

Top