বৃষ্টিতে বাউফলে ১৪ হাজার হেক্টর ফসলের ক্ষয়ক্ষতি

বৃষ্টিতে বাউফলে ১৪ হাজার হেক্টর ফসলের ক্ষয়ক্ষতি

পটুয়াখালীর বাউফল উপজেলায় গত তিন দিনের অবিরাম বৃষ্টির কারনে আমান ধান ও সবজির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ধানে শীষ আসার পূর্ব মূহুর্তে এ ধরনে দুর্যোগ ধান ফলনের ক্ষেত্রে ব্যাপক প্রভাব পড়বে বলে জানিয়েছেন উপজেলা কৃষি অফিস। এ দুর্যোগের ফলে দিশেহারা হয়ে পড়েছে উপজেলা প্রান্তিক কৃষকরা।

উপজেলা কৃষি অফিস সুত্রে জানা গেছে, চলতি বছর উপজেলায় ৩৭ হাজার ৬শ হেক্টর জমিতে আমন চাষ করা হয়েছে। এর মধ্যে ২০ হাজার হেক্টর জমিতে স্থানীয় জাতের ও ১৭ হাজার ৬শ হেক্টর জমিতে উচ্চফলনশীল আমান চাষ করা হয়। অপর দিকে ৩ হাজার ৫শ হেক্টর জমিতে বেগুন, টমেটো, লাউ, পালনশাক ও লালশাক ইত্যাদি ধরনের সবজি চাষ করা হয়েছে। আহাওয়া অনুকুলে থাকায় আমন ও সবজির বাম্পার ফলন হওয়ার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছিল। কিন্তু বিগত তিন দিনের বিরামহীন ভারি বর্ষনের ফলে ১২৫৬০ হেক্টর আমন ও ৩০০ হেক্টর সবজি ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

সরজমিনে উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন ঘুরে দেখা গেছে টানা বৃষ্টির কারনে জমির ধান গাছের গোড়ালী ভেঙ্গে পড়েছে। কোন উপায় না পেয়ে কৃষরা ক্ষেতের কাছে গিয়ে শুধু নির্বাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে। চর কালাইয়া এলাকার বর্গা চাষী বাদল প্যাদা জানিয়েছেন, তার প্রায় ৩ একর জমির অধিকাংশ ধান টানা বৃষ্টি ও ঝরো বাতাসের কারনে শুয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, মহাজনের কাছ থেকে জমি বর্গা ও সুদের ওপড় টাকা নিয়ে ধান চাষে দুর্যোগের কারনে এ বছর ক্ষতির মুখে পড়তে হলো। এক সময়ে ধান চাষী সংকর হাওলাদার জানান, বিগত বছরে ধান চাষে লোকাসান গুনে এ বছর সবজি চাষ শুরু করে ছিলাম। কিন্তু সে আশায়ও সেগুরেবালী।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা সরোয়ার জামান সময়ের কণ্ঠস্বরকে জানান, আমার মাঠ পর্যায়ের কৃষকদের এ ধরনের দুর্যোগের পূর্বাভাস দুই দিন আগেই দিয়ে ছিলাম। চাষীদের ক্ষেতের পানি নিস্কাসনের জন্য বলা হয়েছে। তবে যে জমির ধান গাছ শুয়ে পড়েছে তার ৩৫ভাগ ধান নষ্ট হলেও বাকীটা ভালো থাকবে বলে আশা করা যায়।

Top
%d bloggers like this: