ব্যক্তিগত নয় অফিসের ছাদে বাগান করেছেন উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ রোস্তম আলী

ব্যক্তিগত নয় অফিসের ছাদে বাগান করেছেন উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ রোস্তম আলী

বিষমুক্ত ও ভেজাল মুক্ত এবং শতভাগ নিরাপদ অরগানিক খাবারের যোগান নিশ্চিত করতে ছাদ কৃষি বর্তমানে অগ্রনী ভুমিকা পালন করছে। শহরায়নের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মানুষের খাদ্য ও পুষ্টির চাহিদা, বিপরীতে কমছে কৃষি জমি। ফলে পরিবেশ তথা শহর কৃষি দিন দিন প্রাণ বৈচিত্রের অভাবে হুমকির মুখে পড়ছে। মান সম্মত ও সুস্বাস্থ্যময় জীবনের জন্য এ লক্ষে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর শহর অঞ্চলে প্রযুক্তি নির্ভর ছাদ কৃষির নব্য ধারণা নিয়ে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এই ধারাবাহিকতায় নিজ অফিসের ছাদে বাগান করে সৃজনশীল দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার কৃষি অফিসার মোঃ রোস্তম আলী। প্রায় দেড় বছর আগে সিরাজগঞ্জ সদরে উপজেলা কৃষি অফিসার হিসেবে যোগদানের পর তিনি উদ্যোগ নেন অফিসের উম্মুক্ত ছাদে সৃজনশীল চাষাবাদের।

তার ছাদ বাগান স্থাপনে উৎসাহ ও অনুপ্রেরণা যুগিয়েছেন সিরাজগঞ্জ জেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক জনাব আরশেদ আলী । তার সেই উদ্যম ও উদ্যোগের ছাদ কৃষি আজ সিরাজগঞ্জে অন্যান্যদের জন্য মডেল স্বরুপ। ছাদ বাগানের শুরুটা হয়েছিল জেলা ফলদ ও বনজ মেলা হতে প্রাপ্ত চারা সংগ্রহ ও তা রোপনের মাধ্যমে।

বর্তমানে তার নিজস্ব উদ্যোগে ছাদ বাগানের পরিসর বৃদ্ধি পেয়ে প্রায় দুই শতাধিক ফলদ, ঔষধি, অরনামেন্টাল এবং সবজি জাতীয় ফসল শোভা পাচ্ছে। বাহারী বাগানে রয়েছে আম, লিচু, জামরুল, পেয়ারা, পেঁপে, আমড়া, লেবু, কমলা, মাল্টা, কামরাঙ্গা, ড্রাগন, ডালিম, সফেদা, বেগুন, শীম, লাউ, শসা, লালশাক, পুঁইশাক, বিলাতী ধনিয়া, ক্যাকটাস, মরিচ, পাতাবাহার, মেহেদী, তেজপাতা, কলাবতী, বেলী, গন্ধরাজ, রঙ্গন, পাম ট্রি, পাথরকুচি, ক্রিসমাস ট্রি, স্টেভিয়া, এ্যালোভেরা সহ আরো অনেক অরমেন্টাল উদ্ভিদ। তার ছাদ বাগানটি তিনি নিজ হাতে চারা রোপন সহ পরিচর্যা করেন।

এছাড়াও ছাদে তিনটি কেঁচো কম্পোষ্ট চেম্বার রয়েছে। সেখান থেকে উৎপাদিত সার ছাদে ব্যবহার করছেন পাশাপাশি কেঁচো কৃষকদের মাঝে বিতরণ করছেন। তিনি ছাদে পলিব্যাগে লাউ, শীম, করলা চারা উৎপাদন করে গরীব কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যে বিতরণ করছেন। প্রায় প্রতিদিন বিভিন্ন দপ্তরের অফিসারগণ, কৃষক-কৃষাণী ও সাধারণ জনগন সানন্দে ছাদ বাগান দেখতে ভীড় জমান।

উপজেলা কৃষি অফিসার বলেন, প্রতিনিয়ত কৃষি জমি কমে যাচ্ছে, বিষমুক্ত ও ভেজাল মুক্ত এবং শতভাগ নিরাপদ অরগানিক খাবারের যোগান নিশ্চিত করতে, পুষ্টি চাহিদা পূরণে এবং পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় ছাদ কৃষি অগ্রণী ভূমিকা রাখতে পারে।

তাছাড়া ছাদ কৃষি করতে আগ্রহী ব্যক্তিগণকে সরেজমিন প্রশিক্ষণ কলাকৌশল শিখানো সম্ভব হচ্ছে এবং ছাদ কৃষি করতে আগ্রহী হচ্ছে। তিনি নিজস্ব অর্থায়নে ছাদ বাগানটি করেছেন যাতে সিরাজগঞ্জ শহরবাসী ছাদ বাগান করতে উৎসাহিত হয়।